বিশ্ব মানসিক স্বাস্থ্য দিবস পালিত হলো ঢাকা আহ্ছানিয়া মিশনের গাজীপুর সেন্টারে

বিশ্ব মানসিক স্বাস্থ্য দিবস পালিত হলো ঢাকা আহ্ছানিয়া মিশনের  গাজীপুর সেন্টারে
“পরিবর্তনশীল বিশ্বে তরুণদের মানসিক স্বাস্থ্য” এই স্লোগানে এ বছর পালিত হচ্ছে বিশ্ব মানসিক স্বাস্থ্য দিবস। এই দিবস উদযাপনকে কেন্দ্র করে আজ ১২ই অক্টোবর ২০১৮ আহ্ছানিয়া মিশন মাদকাসক্তি চিকিৎসা ও পুনর্বাসন কেন্দ্র গাজীপুরে “তরুণদের মানসিক স্বাস্থ্যে মাদকের প্রভাব ও বর্তমান প্রেক্ষাপট” এই বিষয়ে পারিবারিক সভার আয়োজন করা হয়। সভাটি আহ্ছানিয়া মিশন গাজীপুরের ফ্যামিলি মিটিং রুমে আয়োজন করা হয়। সভায় অংশগ্রহণকারীরা ছিলেন আহ্ছানিয়া মিশন মাদাকাসক্তি চিকিৎসা ও পুনর্বাসন কেন্দ্র গাজীপুরে চিকিৎসা নিতে আসা পরিবারের সদস্যদগন এবং এই সেবার সাথে সম্পৃক্ত পেশাজীবিগন। সভার শুরুতে স্বাগত বক্তব্য প্রদান করেন আহ্ছানিয়া মিশন মাদকাসক্তি চিকিৎসা কেন্দ্র গাজীপুরের কেন্দ্র ব্যবস্থাপক মোঃ আজিজুল হাকিম। এরপর “তরুণদের মানসিক স্বাস্থ্যে মাদকের প্রভাব ও বর্তমান প্রেক্ষাপট” বিষয়ে মূল প্রবন্ধ উপস্থাপনা করেন আহ্ছানিয়া মিশন মাদকাসক্তি চিকিৎসা কেন্দ্র গাজীপুরের সিনিয়র কাউন্সেলর এবং এ্যাডিকশন প্রফেশনাল মাহমুদুল হাসান চকদার। এরপর তরুনদের মানসিক স্বাস্থ্যে মাদকের প্রভাব সম্পর্কে আলোচনা করেন কাউন্সেলর মোঃ আশরাফুল বারী, আইআরএসওপি প্রজেক্ট ঢাকা আহছানিয়া মিশন। তারপর তরুনদের মানসিক স্বাস্থ্যে মাদকের প্রভাব ও পরিবারের করনীয় সম্পর্কে আলোচনা করেন আহছানিয়া মিশন মাদকাসক্তি চিকিৎসা ও পূনর্বাসন কেন্দ্রের কাউন্সেলর মোঃ মাইদুল ইসলাম। চিকিৎসা নিয়ে দীর্ঘ দিন সুস্থ্য আছেন এমন একজন রিকভারী নিজের সুস্থ্য জীবনের অভিজ্ঞতা প্রকাশ করেন। তারপর আলোচ্য বিষয়ের আলোকে প্রধান আলোচক হিসাবে আলোচনা করেন এ্যাডিকশন প্রফেশনাল ডা. মোঃ রাহেনুল ইসলাম রেসিডেন্সিয়াল মনোচিকিৎসক সিডিটিসি, তেঁজগাও, ঢাকা । মুল বিষয় আলোচনার পরে মুক্ত আলোচনা শুরু হয় এ সময় সভার আলোচকগন অংশগ্রহণকারীদের বিভিন্ন প্রশ্নের উত্তর দেন। সভাটি সঞ্চালনা করেন আহ্ছানিয়া মিশন মাদকাসক্তি চিকিৎসা ও পুনর্বাসন কেন্দ্র গাজীপুরের কেন্দ্র ব্যবস্থাপক মোঃ আজিজুল হাকিম। উল্লেখ্য এবারের মানসিক স্বাস্থ্য দিবসের প্রতিপাদ্য তরুণদের মানসিক স্বাস্থ্যে উপর বিশেষ গুরুত্ব দেয়া হয়েছে। কারন পরিবর্তনশীল বিশ্বে তরুণদের ইতিবাচকভাবে খাপ খাওয়ানোর দক্ষতা অর্জন এবং সুস্থ্য মানসিক বিকাশের মাধ্যমে বিশ্বকে এগিয়ে নিয়ে যাওয়ার ক্ষেত্রে তরুনদেরকেই অগ্রনী ভূমিকা পালন করতে হবে।

Please like and share us: